দেশের সবচেয়ে বড় বাংলা প্রশ্নোত্তর সাইট
আন্স বাংলা ডট কমে আপনাকে সুস্বাগতম ! এখানে বিনামুল্যে আপনার প্রশ্ন করে উত্তর জেনে নিতে পারবেন। সর্বোচ্চ সুবিধা পেতে দয়া করে নিবন্ধন করুন। নিবন্ধন করতে এখানে ক্লিক করুন......।
13 জন দেখেছেন
"ইতিহাস" বিভাগে করেছেন গুনী
পূনঃরায় খুলুন করেছেন

1 উত্তর

0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন গুনী
দুটি নতুন অধিরাজ্য: ভারতীয় সাম্রাজ্য থেকে দুটি নতুন অধিরাজ্য তৈরি হয়েছিল: পাকিস্তান এবং ভারত। নিয়োগের তারিখ: ১৫ ই আগস্ট, ১৯৪৭ সাল বিভাজনের জন্য নির্ধারিত তারিখ হিসাবে ঘোষণা করা হয়েছিল। অঞ্চল সমূহ: পাকিস্তান: পূর্ববঙ্গ, পশ্চিম পাঞ্জাব, সিন্ধু এবং প্রধান কমিশনারের বালুচিস্তান প্রদেশ। উত্তর পশ্চিম সীমান্ত প্রদেশ (এখন খাইবার পাখতুনখোয়া)র ভাগ্য ১৯৪৭ সালের উত্তর-পশ্চিম সীমান্ত প্রদেশের গণভোটের ফলাফল সাপেক্ষে। বঙ্গ ও আসাম: ভারত সরকার আইন ১৯৩৫ এর অধীন গঠিত বাংলা প্রদেশটির অস্তিত্ব আর থাকলনা। এর পরিবর্তে দুটি নতুন প্রদেশ গঠন করা হয়েছিল, যথাক্রমে পূর্ববঙ্গ এবং পশ্চিমবঙ্গ। আসাম প্রদেশের সিলেট জেলার ভাগ্য নির্ধারণ করা হয়েছিল ১৯৪৭ এর সিলেট গণভোটে। পাঞ্জাব: ভারত সরকার আইন ১৯৩৫ এর অধীন গঠিত এই প্রদেশটির অস্তিত্ব আর থাকলনা। দুটি নতুন প্রদেশ গঠন করা হয়েছিল, যথাক্রমে পশ্চিম পাঞ্জাব এবং পূর্ব পাঞ্জাব। গভর্নর জেনারেল কর্তৃক নিযুক্ত একটি সীমানা কমিশনের সিদ্ধান্তের মাধ্যমে নতুন প্রদেশের সীমানা নির্ধারিত হবে বিভাজনের তারিখের আগে বা পরে। নতুন অধিরাজ্যের সংবিধান: নতুন সংবিধান তৈরির সময় পর্যন্ত, নতুন অধিরাজ্য এবং তার প্রদেশগুলি ভারত সরকার আইন ১৯৩৫ দ্বারা পরিচালিত হবে। (প্রতিটি নতুন অধিরাজ্যের সরকার হিসাবে অস্থায়ী বিধানসমূহ)। নতুন অধিরাজ্যের গভর্নর জেনারেল: নতুন অধিরাজ্যের প্রত্যেকটির জন্য রাজমুকুট দ্বারা একটি নতুন গভর্নর-জেনারেল নিয়োগ করা হবে, নতুন অধিরাজ্যের যে কোনও একটি আইনসভার আইন সাপেক্ষে। উভয় অধিরাজ্যের গভর্নর জেনারেল হিসাবে একই ব্যক্তি: যতক্ষণ না পর্যন্ত যে কোন একটি অধিরাজ্য দ্বারা এর বিপরীত কোন ব্যবস্থা করা হয়, একই ব্যক্তি দুটি অধিরাজ্যেরই গভর্নর জেনারেল থাকতে পারবে। গভর্নর জেনারেলের ক্ষমতা: (অনুচ্ছেদ -৯) গভর্নর জেনারেলকে এই আইন কার্যকর করার ক্ষমতা দেওয়া হয়েছিল। অঞ্চল, ক্ষমতা, কর্তব্য, অধিকার, সম্পদ, দায়বদ্ধতা ইত্যাদির বিভাজন বিষয় গভর্নর জেনারেলের দায়িত্ব ছিল। প্রয়োজনীয় বিবেচনা করলে, গভর্নর-জেনারেল, ভারত সরকার আইন ১৯৩৫, গ্রহণ, সংশোধন করতে পারে। যে কোনও পরিবর্তন প্রবর্তন করার ক্ষমতা ছিল ১৯৪৮ সালের ৩১ শে মার্চ অবধি, এর পরে এই আইন সংশোধন বা গৃহীত করার জন্য এটি নির্বাচনী পরিষদের কাছে উন্মুক্ত ছিল। (প্রতিটি নতুন অধিরাজ্যের সরকার হিসাবে অস্থায়ী বিধানসমূহ।) যে কোনও আইনে সম্মতি দেওয়ার সম্পূর্ণ ক্ষমতা গভর্নর-জেনারেলের ছিল। নতুন অধিরাজ্যের জন্য আইন: সংবিধান প্রণয়ন সংস্থার পাশাপাশি একটি আইনসভা হিসাবে বিদ্যমান আইনসভা চালিয়ে যাওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়েছিল। (প্রতিটি নতুন অধিরাজ্যের সরকার হিসাবে অস্থায়ী বিধানসমূহ) প্রতিটি অধিরাজ্যের আইনসভাকে এই কর্তৃত্বের জন্য বহির্মুখী ক্রিয়াকলাপ সহ আইন করার পূর্ণ ক্ষমতা দেওয়া হয়েছিল। যুক্তরাজ্যের পার্লামেন্টের কোনও আইন নির্ধারিত তারিখের পরে পাস না করে নতুন অধিরাজ্যের অঞ্চলগুলিতে প্রসারিত হবে। নতুন অধিরাজ্য বিধানসভা দ্বারা তৈরি কোন আইন এবং বিধি ইংল্যান্ডের আইনের পরিপন্থী হওয়ার কারণে নিষ্ক্রিয় হবে না। প্রতিটি অধিরাজ্যের গভর্নর জেনারেল আইনসভার যে কোনও আইনকে তাঁর মহামহিমের নামে সম্মতি জানাতে পূর্ণ ক্ষমতা রাখেন। [পাকিস্তানের সংবিধান পরিষদের গঠন (ক্যাপ ১): কেন্দ্রীয় আইনসভার ৬৯ সদস্য + ১০ অভিবাসী সদস্য = ৭৯]। নতুন অধিরাজ্য স্থাপনের ফলাফল: মহামহিমের সরকার নতুন অধিরাজ্যের সমস্ত দায়িত্ব হারিয়েছে। ভারতীয় রাজ্যগুলিতে মহামহিমের সরকারের সার্বভৌমত্ব শেষ হয়ে গেল। এই আইন পাসের সময় কার্যকর হওয়া ভারতীয় রাজ্য এবং উপজাতি অঞ্চলএর সাথে সমস্ত চুক্তি বা চুক্তি বাতিল হয়ে গেল। "ভারতের সম্রাট" উপাধিটি ব্রিটিশ রাজমুকুটের উপাধি থেকে বাদ দেওয়া হল। ভারতের রাজ্য সচিবের দপ্তর বাতিল করে দেওয়া হয়েছিল এবং রাজমুকুটের অধীনে রাজ্য সচিবের সিভিল সার্ভিস বা সিভিল পদে নিয়োগ সংক্রান্ত ভারত সরকার আইন ১৯৩৫ এর বিধানগুলি পরিচালনা করা বন্ধ করে দিয়েছিল। সরকারি কর্মচারী: ধারা ১০ অনুসারে, নতুন অধিরাজ্যের সরকারের অধীনে, ১৯৪৭ সালের ১৫ই আগস্ট বা তার আগে নিযুক্ত সরকারী কর্মচারীদের সম্পূর্ণ সুবিধা সহ পরিষেবার ধারাবাহিকতা থাকবে। সশস্ত্র বাহিনী: ১১, ১২ এবং ১৩ ধারাগুলিতে ভারতীয় সশস্ত্র বাহিনীর ভবিষ্যতের বিষয়ে আলোচনা করা হয়েছে। বিভাজন সম্পর্কে সিদ্ধান্ত নিতে, প্রত্যেক পক্ষের দুজন প্রতিনিধি এবং ভাইসরয় কে নিয়ে, ১৯৪৭ সালের ৭ ই জুন, একটি বিভাজন সম্বন্ধীয় কমিটি গঠন করা হয়েছিল। বিভাজনের প্রক্রিয়া শুরু হওয়ার সাথে সাথেই অনুরূপ কাঠামোর একটি বিভাজন কাউন্সিল দ্বারা তাকে প্রতিস্থাপন করা হয়েছিল। প্রথম এবং দ্বিতীয় তালিকা: প্রথম তফসিলটিতে নতুন প্রদেশ পূর্ববাংলার জেলাগুলিকে অস্থায়ীভাবে তালিকাভুক্ত করা হয়: চট্টগ্রাম বিভাগ: চট্টগ্রাম, পার্বত্য চট্টগ্রাম, নোয়াখালী ও টিপ্পেরাহ জেলা। ঢাকা বিভাগ: বাকারগঞ্জ, ঢাকা, ফরিদপুর ও ময়মনসিংহ জেলা। প্রেসিডেন্সি বিভাগ: যশোর জেলা (বনগাঁ তহশিল ব্যতীত), এবং কুষ্টিয়া ও মেহেরপুর তহশিল (নদীয়া জেলার)। রাজশাহী বিভাগ: বগুড়া জেলা, দিনাজপুর (রায়গঞ্জ ও বালুরঘাট তহশিল বাদে), রাজশাহী, রংপুর ও নবাবগঞ্জ তহশিল (মালদা জেলার)। দ্বিতীয় তফসিলে নতুন প্রদেশ পশ্চিম পাঞ্জাবের অন্তর্ভুক্ত জেলাগুলিকে তালিকাভুক্ত করা হয়েছে: লাহোর বিভাগ: গুজরানওয়ালা জেলাগুলি, লাহোর (পট্টি তহশিল বাদে), শেখুপুরা, শিয়ালকোট ও শকরগড় তহশিল (গুরুদাসপুর জেলার)। রাওয়ালপিন্ডি বিভাগ: অটক, গুজরাট, ঝিলাম, রাওয়ালপিন্ডি ও শাহপুর জেলা। মুলতান বিভাগ: ডেরা গাজী খান, ঝাং, লিয়ালপুর, মন্টগোমেরি, মুলতান ও মুজাফফরগড় জেলা।
সাবাহ আজমান নাহিয়ান বর্তমানে তিনি একাদশ শ্র‌েণীর অধ্যয়নরত ছাত্র। অজানা অনেক কিছু এবং জানা নিজের অর্জিত কিছু জ্ঞান অন্যদের মাঝে বিলিয়ে দেয়ার জন্যই তিনি আন্স বাংলার সেবায় নিযুক্ত আছেন "বিশেষজ্ঞ" হিসেবে।
আন্স বাংলা মাতৃভাষা বাংলায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য অনলাইন মাধ্যম। এখানে আপনি দৈনন্দিন জীবনের বিভিন্ন ধরনের প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করতে পারবেন এবং অন্যদের প্রশ্নের উত্তর দিতে পারবেন। তাছাড়া অন্যান্য কার্যাবলীর মাধ্যমে নিজেদের আদর্শ ও প্রতিভাকে বিকাশিত করতে পারবেন। সমস্যার সমাধান দেওয়ার পাশাপাশি নিজের জ্ঞানকে যাচাই ও সমুন্নত করে অনলাইনে উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলাই আমাদের লক্ষ্য।

9 জন অনলাইনে আছেন
0 জন মেম্বার 9 জন অতিথি
আজকের ভিজিট: 10020
গতকালের ভিজিট : 9297
সর্বমোট ভিজিট : 3980824
আন্স বাংলায় প্রকাশিত সকল প্রশ্ন, উত্তর এবং মন্তব্যসহ যাবতীয় কার্যকলাপের সম্পূর্ণ দায়বদ্ধতা শুধুমাত্র প্রকাশকারী সদস্যের, এতে কোনো ভাবেই কোনো বক্তব্য আন্স বাংলার মতামত নয় ।
...