27 জন দেখেছেন
"ইসলাম ধর্ম" বিভাগে করেছেন (7,050 পয়েন্ট)

1 উত্তর

0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
রোযা ভঙ্গের কারণ ৮ টি

১- স্ত্রী সহবাস : রোযাদার যদি রমাযানের দিনে স্ত্রী সহবাসে লিপ্ত হয় তবে উক্ত রোযা কাযা আদায়সহ জটিল কাফ্ফারা আদায় করতে হবে। আর তা হলো : একটি গোলাম আজাদ করা, যদি সামর্থ্য না থাকে তবে ধারাবাহিক দুই মাস (মাঝে বিরতি ছাড়া) রোযা রাখতে হবে আর যদি তার সামর্থ্য না থাকে তবে ৬০ জন মিসকীনকে খাওয়াতে হবে। [সহীহ বুখারীঃ ১৯৩৬]

২- বীর্যপাত : জাগ্রতাবস্থায় হস্ত মৈথুন, স্ত্রীর সাথে মেলা-মেশা করা, চুমো দেয়া, স্পর্শ করা অথবা অন্য কোন কারণে বীর্যপাত হলে রোযা বিনষ্ট হয়ে যাবে।

৩- পানাহার : উপকারী বা ক্ষতি কারক (যেমন ধূমপান) কোন কিছু পানাহারে রোযা ভেঙে যায়।

৪- ইনজেকশন যোগে খাদ্যের সম্পূরক খাদ্য জাতীয় কোন কিছু প্রয়োগ করলে। কিন্তু তা যদি খাদ্যের সম্পূরক না হয় তবে শরীরের যেখানেই প্রয়োগ করা হোক যদিও তার স্বাদ গলায় অনুভূত হয় রোযা নষ্ট হবে না।

৫- ইনজেকশন যোগে রক্ত প্রয়োগ : যেমন রোযাদারের যদি রক্ত শূন্যতা দেখা দেয় আর তার ফলে ইন্জেকশন প্রয়োগে রক্ত প্রবেশ করান হয় তবে রোযা নষ্ট হয়ে যাবে।

৬- মাসিক ঋতু স্রাব: মাসিক ঋতু স্রাব ও সন্তান প্রসব জনিত স্রাব।

৭- রক্ত বের করা শিংগা বা এ জাতীয় কিছু লাগিয়ে রক্ত বের করা, তবে যদি রক্ত স্বাভাবিকভাবে যেমন নাক থেকে রক্তক্ষরণ বা দাঁত উঠানোর ফলে বা এ ধরনের অন্য কারণে বের হয় তবে রোযা বিনষ্ট হবে না।

৮- বমি করলে : ইচ্ছাকৃতভাবে বমি করলে রোযা নষ্ট হবে কিন্তু অনিচ্ছায় বমি করলে রোযা নষ্ট হবে না।
করেছেন (7,050 পয়েন্ট)

সংশ্লিষ্ট প্রশ্নসমূহ

1 টি উত্তর
26 আগস্ট 2019 "ইসলাম ধর্ম" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন অজ্ঞাতকুলশীল
1 টি উত্তর
12 এপ্রিল 2020 "ইবাদত ও আ'মল" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Roki (12,845 পয়েন্ট)
1 টি উত্তর
1 টি উত্তর
01 ফেব্রুয়ারি "ধর্ম ও বিশ্বাস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Md Towyabur Rahman (95 পয়েন্ট)
1 টি উত্তর
1 টি উত্তর
1 টি উত্তর
03 ফেব্রুয়ারি 2020 "সাধারণ জ্ঞান" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Murad Ahmed (2,134 পয়েন্ট)
1 টি উত্তর
13 নভেম্বর 2019 "শব্দের অর্থ" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন হাবীবুল্লাহ মিসবাহ (6,939 পয়েন্ট)
1 টি উত্তর
19 এপ্রিল 2020 "ইসলাম ধর্ম" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন নাহিয়ান (7,050 পয়েন্ট)
...