22 জন দেখেছেন
বন্ধ
"ভূগোল" বিভাগে করেছেন (7,050 পয়েন্ট)
পূনঃপ্রদর্শিত করেছেন

1 উত্তর

1 টি পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
 
সর্বোত্তম উত্তর
অ্যান্টার্কটিকা (ইউকে: /ænˈtɑːrktɪkə/ বা /ænˈtɑːrtɪkə/, ইউএস: /æntˈɑːrktɪkə/) হল পৃথিবীর সর্বদক্ষিণে অবস্থিত মহাদেশ। ভৌগোলিক দক্ষিণ মেরু এই মহাদেশের অন্তর্গত। দক্ষিণ গোলার্ধের অ্যান্টার্কটিক অঞ্চলে প্রায় সামগ্রিকভাবেই কুমেরু বৃত্তের দক্ষিণে অবস্থিত এই মহাদেশটি দক্ষিণ মহাসাগর দ্বারা পরিবেষ্টিত। ১,৪২,০০,০০০ বর্গকিলোমিটার (৫৫,০০,০০০ বর্গমাইল) আয়তন-বিশিষ্ট অ্যান্টার্কটিকা পৃথিবীর পঞ্চম বৃহত্তম মহাদেশ এবং আয়তনে অস্ট্রেলিয়া মহাদেশের প্রায় দ্বিগুণ। অ্যান্টার্কটিকা মহাদেশটি এখনও পর্যন্ত বিশ্বের সর্বনিম্ন জনবসতিপূর্ণ মহাদেশ। এই মহাদেশের জনঘনত্ব প্রতি বর্গ কিলোমিটারে ০.০০০০৮ জন। অ্যান্টার্কটিকার ৯৮% অঞ্চল গড়ে ১.৯ কিমি (১.২ মা; ৬,২০০ ফু) পুরু বরফে আবৃত। অ্যান্টার্কটিক উপদ্বীপের উত্তরপ্রান্তে অবস্থিত অংশগুলি বাদ দিয়ে সর্বত্রই এই বরফের আস্তরণ প্রসারিত। সামগ্রিকভাবে অ্যান্টার্কটিকা হল পৃথিবীর শীতলতম, শুষ্কতম এবং সর্বাধিক ঝটিকাপূর্ণ মহাদেশ। বিশ্বের সকল মহাদেশের মধ্যে এই মহাদেশটির গড় উচ্চতা সর্বাধিক। আন্টার্কটিকার অধিকাংশ অঞ্চলই একটি মেরু মরুভূমির অন্তর্গত। এই মহাদেশের উপকূলভাগে এবং উপকূল-সমীপস্থ অঞ্চলগুলিতে বার্ষিক পরিচলন বৃষ্টিপাতের পরিমাণ ২০ সেমি (৭.৯ ইঞ্চি)। অ্যান্টার্কটিকার তাপমাত্রা −৮৯.২ °সেন্টিগ্রেড (−১২৮.৬ °ফারেনহাইট) পর্যন্ত (অথবা মহাকাশ থেকে পরিমাপকৃত হিসাব অনুযায়ী, −৯৭.৭ °সেন্টিগ্রেড অর্থাৎ −১৩৫.৮ °ফারেনহাইট পর্যন্ত) নামতে পারে।[৮] যদিও মহাদেশের তিন-চতুর্থাংশ অঞ্চলের (বছরের শীতলতম অংশ) গড় তাপমাত্রা −৬৩ °সেন্টিগ্রেড (−৮১ °ফারেনহাইট)। সমগ্র মহাদেশে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা গবেষণা কেন্দ্রগুলিতে সারা বছরই ১,০০০ থেকে ৫,০০০ লোক বসবাস করে। এখানকার স্থানীয় জীবজগতের মধ্যে বিভিন্ন ধরনের শৈবাল, ব্যাকটেরিয়া, ছত্রাক, উদ্ভিদ, প্রোটিস্ট এবং মাইট, নেমাটোডা, পেঙ্গুইন, সিল ও টারডিগ্রেড বিভিন্ন ধরনের প্রাণীর নাম উল্লেখযোগ্য। অ্যান্টার্কটিকের তুন্দ্রা অঞ্চলেই গাছপালা দেখা যায়। বিশ্বের নথিবদ্ধ ইতিহাসে অ্যান্টার্কটিকাই হল সর্বশেষ আবিষ্কৃত অঞ্চল। ১৮২০ সালে ভস্তক ও মার্নি নামে দুই রাশিয়ান রণতরীর অভিযাত্রী ফেবিয়ান গোটলিয়েব ফন বেলিংশসেন ও মিখাইল লাজারেভ কর্তৃক ফিমবুল তুষার সোপান আবিষ্কারের পূর্বে এই মহাদেশটির অস্তিত্বের কথা কেউই জানত না। অবশ্য ঊনবিংশ শতাব্দীর পরবর্তী পর্যায়েও প্রতিকূল পরিবেশ, সহজলভ্য প্রাকৃতিক সম্পদের অভাব ও দুর্গমতার কারণে এই মহাদেশটি মোটামুটি উপেক্ষিতই ছিল। ১৮৯৫ সালে নরওয়েজীয় অভিযাত্রীদের একটি দলই প্রথম এই মহাদেশে অবতরণ করে বলে নিশ্চিতভাবে জানা যায়। অ্যান্টার্কটিকা একটি ডি ফ্যাক্টো কন্ডোমিনিয়াম। অ্যান্টার্কটিকা চুক্তি অনুযায়ী ‘কনসাল্টিং’ মর্যাদাপ্রাপ্ত পক্ষগুলির দ্বারা এই মহাদেশ শাসিত হয়। ১৯৫৯ সালে বারোটি দেশ এবং তারপর আরও আটত্রিশটি দেশ এই চুক্তিতে সাক্ষর করেছিল। এই চুক্তির দ্বারা অ্যান্টার্কটিকায় সামরিক কার্যকলাপ, খনিজ উত্তোলন, পারমাণবিক বিস্ফোরণ ও পারমাণবিক বর্জ্য নিক্ষেপ নিষিদ্ধ করা হয়, বৈজ্ঞানিক গবেষণার পৃষ্ঠপোষকতা করা হয় এবং সমগ্র মহাদেশের জৈবভৌগোলিক ক্ষেত্রটি রক্ষা করা হয়। বর্তমানে বিভিন্ন দেশের চার হাজারেরও বেশি বৈজ্ঞানিক এই মহাদেশে গবেষণায় রত।
করেছেন (7,050 পয়েন্ট)
নির্বাচিত করেছেন

সংশ্লিষ্ট প্রশ্নসমূহ

1 টি উত্তর
29 মে 2020 "ভূগোল" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন নাহিয়ান (7,050 পয়েন্ট)
1 টি উত্তর
31 জানুয়ারি "পড়াশোনা" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Siddique (22,933 পয়েন্ট)
1 টি উত্তর
26 জানুয়ারি "ধর্ম ও বিশ্বাস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন নাহিয়ান (7,050 পয়েন্ট)
1 টি উত্তর
20 জানুয়ারি "শিক্ষা প্রতিষ্ঠান" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন নাহিয়ান (7,050 পয়েন্ট)
1 টি উত্তর
1 টি উত্তর
1 টি উত্তর
27 ডিসেম্বর 2020 "বিশ্ব" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন নাহিয়ান (7,050 পয়েন্ট)
1 টি উত্তর
1 টি উত্তর
17 নভেম্বর 2020 "ইবাদত ও আ'মল" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন নাহিয়ান (7,050 পয়েন্ট)
1 টি উত্তর
06 নভেম্বর 2020 "বিশ্ব" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন নাহিয়ান (7,050 পয়েন্ট)
...