23 জন দেখেছেন

 যখন আমি দেখি যে কারুর করা কোন কাজ আমার অন্যায় মনে হয় বা কেউ ভুল কথা বলছে, বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই আমি একাই তার প্রতিবাদ করি। আর এই প্রতিবাদ করতে গিয়ে আমার মনে হয় যে অন্যায় করছে আর যে ভুল বলছে তাদের সঙ্গে আমার শুরু হয়ে যায় তর্ক-বিতর্ক। বড়োদের  ভুল বা অন্যায়  হলও বড়োদের হয়ে সবাই কথা বলে কিন্তু আমার হয়ে কেউ কথা বলতে চায় না ভাবে যে আমি ছোট বলে আমি ভুল কথা বলছি! আর এই প্রতিবাদ করতে গিয়ে আমি সবার কাছে হয়ে যাচ্ছি তর্কবাজ। কেউ কেউ এখন বলে যে আমি নাকি প্রচন্ড তর্ক করি!! আপনিই বলুন এখন আমার কী উচিত আর কী করা অনুচিত??? 

13 জুন 2019 "নিত্য ঝুট ঝামেলা" বিভাগে জিজ্ঞাসা

1 উত্তর

প্রথমত আপনার সাহসিকতার জন্য ধন্যবাদ,বর্তমান যুগে এসে অপরাধ দেখতে পেয়ে তার প্রতিবাদ করার মতো মন মানসিকতার মতো মানুষ খুবই কম পাওয়া যায়

   এক. এক্ষেত্রে আপনি মনোবল হারাবেন না, যে অপরাধ করছে তার প্রতিবাদ ঠান্ডা মাথায় করবেন মেজাজ হারাবেন না এতে দেখা যায় যে প্রতিপক্ষ আপনাকে দিগুন রাগিয়ে দেয় এবং মনোবল ভেঙে ফেলার চেস্টা করে,তখন একা প্রতিবাদ করতে গিয়ে আপনিও আক্রমনের শিকার হবেন।
বিচলিত হবেন না,সবসময় যুক্তিযুক্ত মত প্রকাশ করুন

   দুই. কেউ যদি গোড়ামি মন মানসিকতার হয়ে থাকে সে আপনার কথা কখনোই মানতে চাইবে না,নিজের দোষ স্বিকার করবে না,এক্ষেত্রে বিচলিত না হয়ে মানসিকভাবে শক্ত থাকবেন বেশি কথা ব্যয় করবেন না কখনোই ।কারন আঙুল টা আপনার দিকেই তুলবে

    তিন. অনেক সময় দেখা যায় অপরপক্ষ আপনাকে মানসিক ভাবে দুর্বল করে দেয়ার জন্য কটু বাক্য বলে থাকে সেক্ষেত্রে বলব সেসব কথা এড়িয়ে চলুন এমনভাবে জেনো সেটা আপনার কানেই ঢুকে নি, যখন তারা দেখবে আপনি বিচলিত হচ্ছেন না হাল ছেড়ে দিবে  

    চার. স্ট্রং থাকবেন নিজের মতামত প্রকাশ করবেন,রেগে যাবেন না নাহ মনে রাখবেন রেগে গেলেন তো হেরে গেলেন।খুবই শক্ত ভাবে মুখ দিয়ে প্রতিবাদ করবেন কেউ তর্ক করলে এড়িয়ে চলবেন তাতে জরাবেন না কটু কথা কানে নিবেন না ,লড়াইয়ে জরাবেন না এবং যদি দেখেন কেউ অপরাধের শিকার হচ্ছে তাকে ওই স্থান হতে সরিয়ে নিয়ে আসবেন

দেখবেন সমস্যার অর্ধকেটাই সমাধান হয়ে গিয়েছে
13 জুন 2019 উত্তর প্রদান

সংশ্লিষ্ট প্রশ্নসমূহ

1 টি উত্তর
3 টি উত্তর
...