428 জন দেখেছেন
31 জুলাই 2019 "খাদ্য, পুষ্টি ও রান্না-বান্না" বিভাগে জিজ্ঞাসা
02 আগস্ট 2019 পূনঃরায় খুলুন

2 উত্তর

1 টি পছন্দ 1 টি অপছন্দ

কেউ ভালবাসেন সিদ্ধ ডিম, কেউ পোচ, কেউ বা আবার ওমলেট। অতিরিক্ত ডিমপ্রেমীরা আবার অতকিছু ভাবেনই না। যে কোনও প্রকারে ডিম তাদের চাই-ই-চাই। স্বাস্থ্য সচেতনরা আবার ডিম ভাজার বদলে সেদ্ধতেই মন দেন বেশি। তবে জানেন কি পুষ্টিগুণে সেদ্ধ ও ওমলেট টেক্কা দেয় একে অপরকে? যে ভাবেই খান ডিম সব সময়ই দারুণ।


পুষ্টিগুণ

একটা গোটা সেদ্ধ ডিমে রয়েছে ৭৮ ক্যালরি, ৬.৩ গ্রাম প্রোটিন, ০.৬ গ্রাম কার্বহাইড্রেট ও ৫.৩ গ্রাম ফ্যাট। যার মধ্যে ১.৬ গ্রাম স্যাচুরেটেড ফ্যাট।


ওমলেটে রয়েছে ৯০ ক্যালরি, ৬.৮ গ্রাম ফ্যাট। স্যাচুরে়টেড ফ্যাটের পরিমাণ ২ গ্রাম।


ভিটামিন

একটা গোটা সেদ্ধ ডিমের ১৫ শতাংশ রাইবোফ্লোভিন, ১০ শতাংশ ভিটামিন বি১২ ও ১১ শতাংশ ভিটামিন। ভাজ ডিমেও ভিটামিনের পরিমাণ প্রায় একই। রাইবোফ্লোভিন রক্তকণিকা তৈরি করতে সাহায্য করে, বি১২ স্নায়ুতন্ত্র ও মস্তিষ্কের কর্মক্ষমতা নিয়নন্ত্রণ করে, ভিটামিন ডি রোগ সংক্রমণ প্রতিরোধ করে।


খনিজ

এ বার কিন্তু সেদ্ধ ডিমকে টেক্কা দিয়ে দিয়েছে ওমলেট। সেদ্ধ ডিমের থেকে ওমলেটে মিনারেলের পরিমাণ বেশি। সেদ্ধ ডিমে যেখানে ৯ শতাংশ ফসফরাস রয়েছে, ওমলেটে সেখানে ফসফরাসের পরিমাণ ১০ শতাংশ। হাড় শক্ত করতে ফসফরাস অত্যন্ত জরুরি।

- সূত্র : আনন্দবাজার

02 আগস্ট 2019 উত্তর প্রদান
26 মে পূনঃপ্রদর্শিত
অসাধারন উত্তর
0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ

সিদ্ধ ডিমই সবচেয়ে বেশি উপকারী।

ডিমের কিছু গুণাবলী,,,১. এনার্জির জন্য
কাজ করার জন্য তো আমাদের এনার্জির দরকার হয়ই।ডিম খেলে আমরা সহজেই এই এনার্জি পেতে পারি।ডিমে থাকা ভিটামিন থেকেই মূলত আমরা এই এনার্জি বা শক্তি পেয়ে থাকি।ডিমে থাকা
ভিটামিন বি আমাদের খাওয়া খাদ্যকে এনার্জি বা শক্তিতে রূপান্তরিত করে।তাই প্রতিদিন সকালে ডিমসেদ্ধ খেলে আপনি সারাদিন এনার্জেটিক থাকবেন।
২. চোখের সমস্যা সমাধানে
ডিমে থাকে ভিটামিন এ ,যা আমাদের চোখের জন্য বেশ ভালো।আমাদের দৃষ্টিশক্তিকে উন্নত করে ভিটামিন এ।তাছাড়া ডিমে থাকা কেরোটিনয়েড আর ল্যুটেন বয়স হয়ে গেলে চোখের এক বড় সমস্যা,ম্যাকুলার ডিজেনারেশন হওয়ার সম্ভাবনা কমায়।ছানিও কম হওয়ার দিকে থাকে।
৩. ক্যানসার প্রতিরোধে
ক্যানসার তো এখন প্রায় মহামারী হয়ে গেছে।ঘরে ঘরেই প্রায় এই রোগ।আর এই রোগের চিকিৎসাও এত ব্যয়বহুল যে তা অনেকের সাধ্যের বাইরে।তাই খুব ভালো হয় না যদি ডিম খেয়েই আমরা এই সম্ভাবনা কমাতে পারি!ডিমে থাকা
ভিটামিন ই আমাদের কোষে আর ত্বকে থাকা ফ্রি র্যাডিকেল ধ্বংস করে দেয়।তাই ক্যানসার কম হয়।এছাড়াও নতুন কোষ তৈরি হতেও সাহায্য করে থাকে।অ্যাডোলেশন পিরিয়ডে নিয়মিত ডিম খেলে,যেমন সপ্তাহে ৬টি করে,তাহলে ব্রেস্ট ক্যানসার হওয়ার সম্ভাবনা অনেক কমে যায়।
৪. পেশীর ব্যথা কমাতে
আজকাল শুধু বয়স হলেই নয়,কম বয়সেই অনেকের পেশীতে ব্যথা হতে থাকে।পেশীর জন্য খুব উপকারী ভিটামিন ডি,যা খুব বেশী পরিমাণে ডিমে পাই আমরা।তাই ডিম খেলে আমাদের পেশী মজবুত হয়।নিয়মিত ব্যায়াম করলে তাই ডিম খেতে বলা হয়।
৫. মেয়েদের শরীরের জন্য
জানেন কি,একজন মেয়ের শরীরের জন্য প্রতিদিন ৫০%-৬০% প্রোটিন দরকার হয়,যেটা ডিম থেকেই পাওয়া যায়?ডিমে থাকে ৮০-৮৫ ক্যালোরি যা ৬.৫ গ্রাম প্রোটিনের সমান।তাই সুস্থ থাকতে মেয়েদের রোজ ডিম খাওয়া প্রয়োজন।
৬. হৃদয়ের সুরক্ষায়
হার্টই তো আমাদের সব।তাই একে সুস্থ তো রাখতেই হবে।এক সমীক্ষায় জানা গেছে যে ডিম হার্টে রক্ত জমাট বাঁধতে দেয় না।তাই হার্ট অ্যাটাক বা স্ট্রোক কম হয় নিয়মিত ডিম খেলে।এর পাশাপাশি সারা শরীরেই রক্ত চলাচল সচল আর স্বাভাবিক রাখে।
৭. কোলেস্টেরলের জন্য
আজকাল কোলেস্টেরল নিয়ে আমাদের চিন্তার অন্ত নেই।আমরা সবসময় ভাবি কোলেস্টেরল কিভাবে নিয়ন্ত্রণে রাখব।অনেকে আবার বলেন ডিম নাকি কোলেস্টেরল বাড়ায়।একদমই না।বরং ডিম কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে।ডিমে থাকা ওমেগা ৩ এই কাজটি করতে সাহায্য করে।আবার ডিম এইচ.ডি.এল বা ভালো কোলেস্টেরলের মাত্রা বাড়ায় প্রায় ১০%।
৮. লিপিড প্রোফাইল ঠিক রাখতে
ডিম লিপিড প্রোফাইলও নিয়ন্ত্রণে রাখে।কোনো বাজে প্রভাব ফেলে না।আর তাছাড়া ডিম লোহিত রক্তকণিকা বাড়াতেও সাহায্য করে।তাই রোজ নিয়ম করে ডিম খান।
৯. কোলাইনের উৎস
আমাদের শরীরের সার্বিক সুস্থতায় কোলাইন আমাদের খুবই প্রয়োজন।কোলাইনের ঘাটতি হলে লিভারের নানান সমস্যা বা নিউরোলজিক্যাল ডিসঅর্ডার হয়ে থাকে।ডিমে প্রায় ৩০০-৩৫০ মাইক্রোগ্রাম কোলাইন থাকে।তাই ডিম খেলে লিভার,স্নায়ু,যকৃৎ সব ভালো থাকে।
১০. অ্যামিনো অ্যাসিডের উৎস
আমাদের শরীরের জন্য প্রোটিন যে খুব দরকারী তা তো আমরা জানিই।কিন্তু এটা কি জানেন যে এই প্রোটিনের মূল উৎস কি?সেটা হল অ্যামিনো অ্যাসিড।প্রোটিন তৈরিতে প্রায় একুশ ধরণের অ্যামাইনো অ্যাসিড লাগে।যার মধ্যে নয়টি শরীরে তৈরি হতে পারে না।এর জন্য বাইরে থেকে প্রোটিনের যোগান লাগে।সেই যোগান দেয় ডিম।তাই ডিম কত উপকারী বুঝতেই পারছেন।
১১. নখ মজবুত করতে
অনেকের কমন সমস্যা হল নখ ভেঙ্গে যাওয়া।নখ নানা কারণেই ভেঙ্গে যেতে পারে।একটি বড় কারণ তো যত্ন না করা।কিন্তু ভেতর থেকেও একটা জিনিসের খামতি থাকলে নখ দুর্বল হয়ে ভেঙ্গে যেতে পারে।সেই উপাদান হল সালফার।নখের জন্য সালফার খুবই গুরুত্বপূর্ণ।আর ডিম হল এই সালফারের উৎস।আর শুধু মজবুত নয়,নখকে সুন্দর,সাদাও রাখে সালফার।তাই নিশ্চিন্তে ডিম খান।
১২. অ্যানিমিয়া আটকায়
অনেকেই অ্যানিমিয়া বা রক্তাল্পতায় ভোগেন।মেয়েদের তো শরীর থেকে রক্ত বেরিয়ে যায় বলে তারা অ্যানিমিয়া আক্রান্ত হয়ে থাকেন।আয়রন এই অ্যানিমিয়া হতে দেয় না।আর ডিমে আছে আয়রন।তাছাড়া পিরিয়ডে র সময় রক্ত বেরিয়ে যাওয়ার জন্য মেয়েরা ক্লান্তিতে ভোগে।ডিম খেলে সেই ক্লান্তিও আসে না।

02 ফেব্রুয়ারি উত্তর প্রদান

সংশ্লিষ্ট প্রশ্নসমূহ

1 টি উত্তর
2 টি উত্তর
...