12 জন দেখেছেন
05 নভেম্বর 2019 "স্বাস্থ্য টিপস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন (15,214 পয়েন্ট)

1 উত্তর

0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
05 নভেম্বর 2019 উত্তর প্রদান করেছেন (15,214 পয়েন্ট)
মিষ্টি আলুর গুনাবলী-

আলুর দম, আলু ভাজি, আলুর চিপস, ফ্রেঞ্চ ফ্রাই, আলুর তৈরি যে কোন খাবারই খেতে দারুন। সাধারণত সাদা আলু দিয়ে এই খাবারগুলো তৈরি করা হয়ে থাকে। মিষ্টি আলু নামক এক ধরণের আলু আছে, যা সাধারণত সিদ্ধ করে খাওয়া যায়। অনেকেই এটি খেতে পছন্দ করেন না।

কিন্তু আপনি জানেন কি এই মিষ্টি আলুতে প্রচুর পরিমাণ বিটা ক্যারটিন, ভিটামিন সি, ভিটামিন বি৬, ফাইবার রয়েছে। U.S. Food and Drug Administration এর মতে “একটি মিষ্টি আলুতে ১০০ এর বেশি ভিটামিন এ রয়েছে যা প্রতিদিনের ভিটামিনের চাহিদা পূরণ করে থাকে”।

মিষ্টি আলুতে কেবলই শ্বেতসার, এইতো জানি আমরা, এতে যে আরও পুষ্টি আছে তা কি জানি?

মিষ্টি আলু যেগুলোর রাঙা আবরণ- তাদের মধ্যে যে পুষ্টি উপকরণ তা সাদা মিষ্টি আলুর তুলনায় বেশি। একটি আলুতে আছে ১০০ ক্যালোরি, ২ গ্রাম প্রোটিন, ২২ গ্রাম শ্বেতসার, ৩ গ্রাম আঁশ, ০ গ্রাম চর্বি। এছাড়া ১টি মিষ্টি আলু থেকে প্রতিদিনের চাহিদা ২৬০ভাগ ভিটামিন এ পাওয়া যায়। ১২.৬ভাগ ভিটামিন বি৬, ২৮ভাগ ভিটামিন সি।

ভিটামিন সি ও ডি এর উৎসঃ

মিষ্টি আলু ভিটামিন সি ও ডিরও সমৃদ্ধ উৎস। ভিটামিন সি ভিটামিন সি ঠাণ্ডা প্রতিরোধে ও ভিটামিন ডি স্বাস্থ্যকর হাড়, হার্ট, নার্ভ, ত্বক ও দাঁতের জন্য জরুরি।

ভিটামিন সি দাঁত, হাড় এবং কোষ গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। ক্ষত সারাতে, শরীরে কোলাজন উৎপাদন করে ত্বকের নমনীয়তা ধরে রাখতে ভিটামিন সি এর প্রয়োজন। 

আয়রনের উৎসঃ

মিষ্টি আলু আয়রনেরও ভালো উৎস। এটি আমাদের শরীরে শ্বেতকণিকা তৈরি, চাপ প্রতিরোধ, রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা কার্যকর রাখাসহ নানা কাজে আসে।

অন্যান্য খনিজ উপাদানঃ

মিষ্টি আলুতে ম্যাঙ্গানিজ ও পটাশিয়ামও রয়েছে পর্যাপ্ত পরিমাণে। ধমনী, রক্ত, হাড় ও মাংসপেশির সুস্থতায় ও নার্ভের সুষ্ঠুভাবে কাজ করার জন্য ম্যাঙ্গনেসিয়াম প্রয়োজন।

ডায়াবেটিস প্রতিরোধে:

মিষ্টি আলু প্রাকৃতিকভাবে মিষ্টি হয়, যা রক্তে চিনির মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে। প্রাকৃতিক চিনি কাজের শক্তি প্রদান করে অবসাদ, ক্লান্তি দূর করে থাকে।

মিষ্টি আলুতে প্রাকৃতিকভাবে চিনি থাকলেও তা খুব ধীরে ধীরে রক্তের সঙ্গে মিশে যায়। এতে শরীর শুধু শক্তির নিয়মিত জোগানই পায় না, শরীরে শক্তির ভারসাম্যও বজায় থাকে।

এটি শর্করা হলেও বেশ কিছু গবেষণায় দেখা গেছে মিষ্টি আলু রক্তের সুগার মান সুস্থিতিতে এবং ইনসুলিন রেজিস্ট্যান্স হ্রাস করতে বেশ উপযোগী। মিষ্টি আলুতে বেশ আঁশ আছে, এর গ্লাইসিমিক ইনডেক্স বেশ নিচুতে (৫০)। তবে এতে আরো কিছু উপাদান আছে যে জন্য রক্তের সুগার কমাতে এটি উপযোগী।

আমাদের চর্বি কোষ থেকে উৎপন্ন হয় প্রোটিন হরমোন ‘এডিপোনেকটিন’। যাদের ডায়েবেটিস তাদের শরীরে এডিপোনেক্টিন হরমোন নিচু এবং মিষ্টি আলুর নির্যাস টাইপ ২ ডায়াবেটিস রোগীদের শরীরে এডিপোনেকটিন মান তাৎপর্যপূর্ণভাবে বাড়ায়।

 

পেটের রোগেঃ

ইরিটিবেল বাউয়েল সিনড্রোম (আইবিএস) এবং আলসারেটিভ কোলাইটিসের মত পেটের রোগেও উপকারী। মিষ্টি আলুর আরও রয়েছে প্রদাহরোধী গুণ। দেখা গেছে মিষ্টি আলুতে ফাইটোনিউট্রিয়েন্ট যা আছে, সেগুলো প্রদাহসূচকগুলো হ্রাসে সহযোগী।

হৃদরোগেঃ / হার্ট সুস্থ রাখতে

এ সবজি ভিটামিন বি৬-এর একটি ভালো উৎস। এটি আমাদের শরীরে হোমোসাইস্টিন নামের কেমিক্যাল কমাতে সহায়তা করে। এই কেমিক্যাল হৃদরোগসহ নানা ধরনের অসুখের অন্যতম কারণ। পটাশিয়াম হৃদস্পন্দন স্বাভাবিক রাখতে, কিডনি সুরক্ষায় ও একে কর্মক্ষমতা স্বাভাবিক পর্যায়ে রাখে।

Harvard University School of Public Health এক গবেষণায় দেখেছেন যে, মিষ্টি আলুতে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন বি৬ রয়েছে, যা রক্তের হমোসাইটিনিন ভেঙ্গে দিয়ে রক্তের ধমনী এবং শিরায় রক্ত চলাচল সচল রাখে। এর পটাশিয়াম রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ রেখে হৃদযন্ত্র সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। এছাড়া ইলেক্ট্রোলাইট হার্টবিট নিয়মিত রাখে।

রাতকানা রোগেঃ

রাতকানা রোগের ক্ষেত্রেও এর উপকারিতা লক্ষ্য করা যায়। সে ক্ষেত্রে রোগীকে প্রাণীর, বিশেষ করে খাসীর কলজের সাথে মিষ্টি আলু খাওয়াবেন।

এ ছাড়াও বৃক্কের কার্যক্ষমতায় ঘাটতি বা কাংখিত সময়ের আগেই বীর্যস্খলন-এর সমস্যায় এই উদ্ভিদ কাজে লাগে।

গবেষণায় আরো দেখা গেছে, মিষ্টি আলুতে যে সব ফাইটোনিউট্রিয়েন্ট রয়েছে এগুলো ভারি ধাতু ও মুক্ত মূলকের সম্ভাব্য স্বাস্থ্য ঝুঁকি হ্রাস করার ব্যাপারে বেশ সহায়ক।

খাওয়ার পদ্ধতিঃ

তাজা মিষ্টি আলু খুব ভালো। ঝলসানো বা সেঁকা আলু সঙ্গে দধি (টক দধি) খুব ভালো খাবার। সুপ ও স্টু বানাতেও এ সবজিটি ব্যবহার করতে পারেন।

(বিঃদ্রঃ- মিষ্টি আলুতে আছে অক্সালেট। যাদের কিডনি বা পিত্তথলির সমস্যা এরা মিষ্টি আলু না খাওয়া ভালো।)

ক্যান্সার প্রতিরোধক

দেহের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হল বিটা-ক্যারটিন। একটি মাঝারি আকৃতির মিষ্টি আলুতে ভিটামিন এ এবং বিটা-ক্যারটিন রয়েছে। ত্বককে সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মি থেকে রক্ষা, দৃষ্টিশক্তি ভাল রাখতে সাহায্য করে। 

সংশ্লিষ্ট প্রশ্নসমূহ

1 টি উত্তর
05 অক্টোবর 2020 "স্বাস্থ্য টিপস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Mrinmoy (24,962 পয়েন্ট)
1 টি উত্তর
05 নভেম্বর 2019 "স্বাস্থ্য টিপস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Rihan Afreen (15,214 পয়েন্ট)
1 টি উত্তর
11 ডিসেম্বর 2020 "স্বাস্থ্য টিপস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Mrinmoy (24,962 পয়েন্ট)
1 টি উত্তর
14 ফেব্রুয়ারি 2020 "স্বাস্থ্য টিপস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Atiqur Rahman Atik (24,141 পয়েন্ট)
1 টি উত্তর
06 জানুয়ারি 2020 "স্বাস্থ্য টিপস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Atiqur Rahman Atik (24,141 পয়েন্ট)
1 টি উত্তর
23 ফেব্রুয়ারি "স্বাস্থ্য টিপস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Sajal ojha (33,355 পয়েন্ট)
1 টি উত্তর
23 ফেব্রুয়ারি "স্বাস্থ্য টিপস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Sajal ojha (33,355 পয়েন্ট)
1 টি উত্তর
23 ফেব্রুয়ারি "স্বাস্থ্য টিপস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Sajal ojha (33,355 পয়েন্ট)
1 টি উত্তর
23 ফেব্রুয়ারি "স্বাস্থ্য টিপস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Sajal ojha (33,355 পয়েন্ট)
1 টি উত্তর
23 ফেব্রুয়ারি "স্বাস্থ্য টিপস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Sajal ojha (33,355 পয়েন্ট)
...